কক্সবাজার রাত ৩:৫৯ ২৭ অক্টোবর, ২০২১ | ১১ কার্তিক, ১৪২৮
  শিরোনাম
মুহিবুল্লাহ হত্যার বিষয়টি মাঠ পর্যায়ের পর্যবেক্ষণ আছে: পররাষ্ট্র সচিব রোহিঙ্গাদের আমরা দাওয়াত করে আনিনি-পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিউজ পোর্টাল চালু করতে আগেই নিবন্ধন নিতে হবে : তথ্যমন্ত্রী সোনাদিয়ায় নৌক ডুবিঃ ৯৯৯ তে কলে ১৪ পর্যটক উদ্ধার, নিখোঁজ ১ হোয়াইক্যংয়ে স্থগিত দুই ভোটকেন্দ্রের পুন:নির্বাচনে শংকা, ৯ প্রস্তাবনা রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যায় বিদেশি সংস্থার সম্পৃক্ততা নিয়ে তদন্ত হচ্ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কক্সবাজারের ৩ উপজেলার ২১ ইউপিতে ভোট ১১ নভেম্বর মুখোশধারী সন্ত্রাসীদের গুলিতে রোহিঙ্গা নেতা মাস্টার মুহিবুল্লাহ নিহত ইউপি নির্বাচনে দ্বিতীয় ধাপের ভোট ১১ নভেম্বর ২০২১ সালেও জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা হচ্ছে না : শিক্ষামন্ত্রী

কক্সবাজার শহরে ছুরিকাঘাতে কাউন্সিলর পূত্র খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক :
কক্সবাজার পৌরসভার বৈদ্যঘোনা-বইল্যা পাড়া এলাকায় উকৌশল্যা অগ্যমেধা বৌদ্ধ মন্দির কম্পাউন্ডে মাদকসেবী কিশোর গ্যাং এর ছুরিকাঘাতে কাউন্সিলর পুত্র সেজান নিহত হয়েছে। তবে সেজানও মাদকাসক্ত ছিলে এলাকার লোকজন জানান।
১৬ আগষ্ট সোমবার সকাল সাড়ে দশটায় এই ঘটনাটি ঘটে।
নিহত ওই যুবকের নাম শাহজাহান প্রকাশ সেজান তার পিতা নুর মোহাম্মদ কক্সবাজার শহরের ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর।
ঘটনা প্রসঙ্গে সেজানের পিতা কাউন্সিলর নূর মোহাম্মদ কিছুই জানেন না বলে জানান। তিনি বলেন, হত্যাকাণ্ডের ঘটনা শুনে তিন হাসপাতালে আসেন।
কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি শেখ মুনিরুল গিয়াস বলেন, ঘটনার সাথে কারা জড়িত কিভাবে জড়িত এখনো জানা যায়নি। জড়িতদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সেজানকে ওই এলাকায় নিয়ে আসা তার দূরসম্পর্কিত এক আত্মীয় খোরশেদ আলম নামের এক যুবককে পুলিশ ইতিমধ্যে হেফাজতে নিয়েছে।
স্থানীয় জনসাধারণ জানায়, সম্প্রতি বৌদ্ধমন্দির সংলগ্ন কম্পাউন্ড এলাকাটি মাদকসেবী ও ছিনতাই কারীদের নিরাপদ আস্তানায় পরিণত হয়েছে। সেখানে প্রায় সময় মাদকসেবী ও কিশোর গ্যাং সদস্যরা আড্ডা দিয়ে থাকে।
সেজানকে হয়তো ওই আড্ডায় নিয়ে এসেছিল কেউ। দুই গ্রুপের মতবিরোধ ও কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষের আবু তাহের নামে একজন মাদকাসক্ত তাকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করে। তাহের কক্সবাজার শহরে পুলিশ হত্যা মামলার এক নাম্বার আসামী বলে জানা গেছে।
লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হলে খবর পেয়ে সেখানে যান সেজানের পিতা কাউন্সিলর নুর মোহাম্মদ ও তার মাতা। দুজনেই কান্নায় ভেঙ্গ পড়েন।
এলাকাবাসী জানান, সেজান নুর মোহাম্মদ মাঝুর দ্বিতীয় স্ত্রীর ছেলে। তাকে তার মামা ও স্বজনরা লালন পালন করত। সেজান কক্সবাজার বায়তুশ শরফে একসময় পড়ালেখা করতো। পরে মাদকাসক্ত হওয়ার পর পড়ালেখা ছেড়ে দেন। তার কারনে শহরের মানুষ অতিষ্ট ছিল।




এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

Developed By e2soft Technology

Share via
Copy link
Powered by Social Snap