কক্সবাজার সকাল ৮:২৬ ২২ অক্টোবর, ২০২১ | ৬ কার্তিক, ১৪২৮
  শিরোনাম
মুহিবুল্লাহ হত্যার বিষয়টি মাঠ পর্যায়ের পর্যবেক্ষণ আছে: পররাষ্ট্র সচিব রোহিঙ্গাদের আমরা দাওয়াত করে আনিনি-পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিউজ পোর্টাল চালু করতে আগেই নিবন্ধন নিতে হবে : তথ্যমন্ত্রী সোনাদিয়ায় নৌক ডুবিঃ ৯৯৯ তে কলে ১৪ পর্যটক উদ্ধার, নিখোঁজ ১ হোয়াইক্যংয়ে স্থগিত দুই ভোটকেন্দ্রের পুন:নির্বাচনে শংকা, ৯ প্রস্তাবনা রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যায় বিদেশি সংস্থার সম্পৃক্ততা নিয়ে তদন্ত হচ্ছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কক্সবাজারের ৩ উপজেলার ২১ ইউপিতে ভোট ১১ নভেম্বর মুখোশধারী সন্ত্রাসীদের গুলিতে রোহিঙ্গা নেতা মাস্টার মুহিবুল্লাহ নিহত ইউপি নির্বাচনে দ্বিতীয় ধাপের ভোট ১১ নভেম্বর ২০২১ সালেও জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা হচ্ছে না : শিক্ষামন্ত্রী

কক্সবাজারে টানা বর্ষণে ৪ শতাধিক গ্রাম প্লাবিত, ২০ জনের প্রাণহানি 

ইসলাম মাহমুদঃ

টানা বর্ষণে কক্সবাজার জেলার ৯ উপজেলার ৪১ ইউনিয়নের ৪ শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে আছে দেড় লক্ষাধিক মানুষ। আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়া হয়েছে ৭ হাজার ৬৫ পরিবারের অন্তত ৬০ হাজার মানুষকে।

বুধবার (২৮ জুলাই) রাত সাড়ে আটটার দিকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ। তিনি বলেন, গেল ২৪ ঘণ্টায় কক্সবাজারে প্রাণ গেছে ২০ জনের। বন্যাদুর্গত এলাকার মানুষের জন্য ১৫০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ, ৫ লাখ নগদ অর্থ, মৃতদের ২৫ হাজার করে নগদ অর্থ দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এছাড়া পাহাড়ে ঝুকিপূর্ণ এলাকায় বসবাসরতদের সরিয়ে আনতে জেলা প্রশাসনের একাধিক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে অভিযান চলছে। এখন পর্যন্ত জেলার ৬০ হাজার মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে আনা হয়েছে। তাদের সেখানে খাবার সরবারহ করা হচ্ছে।

কক্সবাজার আবাহাওয়া দফতরের সহকারী আবাহাওয়াবিদ আব্দুর রহমান বলেন, টেকনাফে ৩২৮ মিলিমিটার বৃষ্টি, সদর উপজেলায় ১১৫, কুতুবদিয়ায় ১২৫, মহেশখালীতে ১৩২ মিলিমিটার বৃষ্টির রেকর্ড করা হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টাও মাঝারি থেকে ভারী বর্ষণের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ডেপুটি কমিশনার (নেজারত) জাহিদুল ইসলাম বলেন, পানিবন্দি ও পাহাড়ে বসবাসরত ঝুঁকিতে থাকা মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়া হয়েছে ও হচ্ছে। রান্না করা খাবার দেওয়া হচ্ছে।

৮ হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছেন। এছাড়া পুলিশসহ অন্যরাও সহযোগিতা করছেন। এদিকে, বন্যাকবলিত এলাকার পরিস্থিতি পর্যাবেক্ষণ করতে কক্সবাজারে এসেছেন চট্টগ্রাম বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার কামরুল হাসান।

টানা বৃষ্টিপাত, পাহাড় ধস ও ঢলের পানিতে ভেসে বুধবার ১২ জন, মঙ্গলবার ৬ রোহিঙ্গাসহ ৮ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। এ নিয়ে ২৮ জুলাই সন্ধ্যায় সাড়ে ৭টা পর্যন্ত কক্সবাজারে মোট ২দিনে ২০ জনের প্রাণহানি ঘটেছে।




এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

Developed By e2soft Technology

Share via
Copy link
Powered by Social Snap